সখীপুরে বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে সড়ক নির্মাণের ইটের খোয়ার স্তুপ, দুর্ভোগে শিক্ষার্থীরা

জাতীয় প্রচ্ছদ সারাদেশ

মুহাম্মদুল্লাহ

টাঙ্গাইলের সখীপুরে (আড়াইপাড়া বাজারস্থ) কালিয়াপাড়া মাজেদা মজিদ উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে পাশের সড়ক নির্মাণ কাজের ধুলোবালি মিশ্রিত ইটের খোয়ার বিশাল স্তুপ বানিয়ে রাখা হয়েছে।

এতে ওই বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা যেমন নির্বিঘ্নে ও নিরাপদে খেলাধুলা করতে পারছে না, তেমনি বাতাসে সেই ইটের খোয়ার ধুলোবালি ওড়ে শরীর ও চোখে-মুখে যাওয়ায় শিক্ষার্থীরা অসুস্থ হয়ে যাওয়ার মারাত্মক ঝুঁকিতে রয়েছে।

স্কুল ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, পাশের সড়ক নির্মাণ কাজের ঠিকাদার কোম্পানি প্রয়োজনের অজুহাত দেখিয়ে বিদ্যালয়ের মাঠের অল্প জায়গা সাময়িক সময়ের জন্য ব্যবহার করার কথা বলে মাঠের বড় একটি অংশ দীর্ঘদিন যাবত ব্যবহার করে আসছে। তারা ইটের খোয়ার স্তুপ করেই থামেনি, স্তুপ থেকে খোয়া আনা-নেয়া করার জন্য বড় ও ভারি যানবাহনও সেখানে নিচ্ছে।

এতে ওই বিদ্যালয় এবং আশপাশের আরো তিনটি বিদ্যালয়ের ৬ শতাধিক শিক্ষার্থী দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে রয়েছে। অসুবিধা হচ্ছে পাশে থাকা আড়াইপাড়া বাজার কেন্দ্রীয় মসজিদে মুসল্লীদের যাতায়াতেও।

ওই বিদ্যালয়ের একাধিক শিক্ষার্থী জানান, দীর্ঘদিন যাবত আমাদের স্কুল মাঠে ইটের খোয়া ফেলে রাখার কারণে মাঠ নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। আমরা খেলাধুলা করতে পারছি না। অনেকেই ইটের খোয়ায় হোঁচট খেয়ে ব্যথাও পেয়েছে।

এ বিষয়ে ক্ষোভ জানিয়েছেন একাধিক অভিভাবকও। তারা বলেন, বালু মেশানো ইটের খোয়া স্কুলের মাঠে এভাবে ফেলে রাখার কারণে আমরা বাচ্চাদেরকে নিয়ে আতঙ্কে থাকি। তারা খেলাধুলা করতে গিয়ে মারাত্মক আহত হতে পারে। অনেক শিশু শিক্ষার্থী ইটের খোয়ার স্তুপে উঠে পড়ে। ইটবাহী ভারি ট্রাকও স্কুলের মাঠ দিয়ে চলাচল করে। ফলে মাঠের অন্য অশংও নষ্ট হয়ে যাচ্ছে। বর্ষা এলে মাঠের অবস্থা আরো খারাপ হয়ে যাবে বলেও আশঙ্কা রয়েছে। সড়ক নির্মাণের এসব ইটের খোয়া দ্রুত সরিয়ে মাঠটি সংস্কার করে দেয়ার দাবি জানিয়েছেন অভিভাবক, শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা।

ওই বিদ্যালয়ের সদ্য অবসরে যাওয়া প্রধান শিক্ষক ইয়াসিন আলী বলেন, সড়ক নির্মাণের ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান আমাদেরকে প্রয়োজন দেখিয়ে অল্প কয়েকদিনের কথা বলে স্কুলের মাঠে ইটের খোয়া রাখে। কিন্তু দীর্ঘ দিন হয়ে গেলেও বারবার সরাতে বললেও তারা সরাচ্ছে না। ইটের খোয়ার কারণে শিক্ষার্থীরা নির্বিঘ্নে খেলাধুলা করতে পারছে না। বিভিন্ন ধরনের অসুবিধা হচ্ছে শিক্ষার্থীদের।

ওই বিদ্যালয়ের আরেক শিক্ষক কামরুল ইসলাম বলেন, অল্প কয়েকদিনের কথা বলে তারা এখানে ইটের খোয়ার স্তুপ বানিয়েছে প্রায় বছরখানেক সময় পেরিয়ে গেছে। তাদেরকে এগুলো সরাতে বললেও সরাচ্ছে না। অল্পকিছু সরিয়ে পরবর্তীতে রাতে যখন কেউ না থাকে তখন আবারো ইটের খোয়া এনে এখানেই রেখে দেয়।

বিদ্যালয়ের পাশের সড়ক নির্মাণের কন্ট্রাক্টর সজিব বলেন, আশপাশে তেমন কোনো জায়গা না পাওয়ায় আমরা ১৫ দিনের জন্য স্কুল মাঠের একটি অংশ ব্যবহার করার অনুমতি নিয়েছিলাম। পরে আমাদের গাড়ি নষ্ট হয়ে যাওয়ায় আর সরাতে পারিনি। দুয়েক দিনের মধ্যেই আমরা ইটের খোয়াগুলো সরিয়ে দিব।

বিদ্যালয়ের মাঠ দখল করে সড়ক নির্মাণের ইটের খোয়ার স্তুপ বানানোকে বেআইনি উল্লেখ করে সখীপুর উপজেলা শিক্ষা অফিসার হারুনুর রশিদ বলেন, আমরা খুব দ্রুতই এ বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে ব্যবস্থা নিব।