নিউইয়র্কে প্রকাশ্যে আজানের অনুমতি, মুসলিম কমিউনিটিতে আনন্দের বন্যা

আন্তর্জাতিক প্রচ্ছদ

নিউইয়র্কে এখন থেকে প্রকাশ্যে মসজিদে আজান দেওয়া যাবে। শনিবার (২৪ আগস্ট) নিউইয়র্কের মেয়র অফিসের কমিউনিটি অ্যাফেয়ার্স কর্তৃপক্ষ প্রকাশ্যে আজান দেয়ার অনুমোদন দেয়। মুসলিম কমিউনিটির আবেদনের প্রেক্ষিতে রাজ্যের এই ঘোষণায় আনন্দের জোয়ার বইছে এখানে বসবাসরত ইসলাম ধর্মের অনুসারীদের মধ্যে।

তবে নিউইয়র্ক রাজ্যের সাউন্ড ল অনুযায়ী সকাল ৯টার পূর্বে এবং সূর্যাস্তের পর অনুমতি ব্যতীত কোথায়ও উচ্চ আওয়াজ/ মাইক ব্যবহার করা যাবে না। সেই কারণে ফজর এবং এশা ব্যতীত এখন থেকে জোহর, আসর এবং মাগরিব এই তিন ওয়াক্ত নামাজের আজানের জন্য আর অনুমতি লাগবে না।

তবে এই তিন সময়ের আজানেও সাউন্ড লিমিট মানতে হবে। সেই সাথে প্রতিবেশী কমিউনিটির সুবিধা-অসুবিধার বিষয়টিকেও দৃষ্টি রাখতে হবে। এদিকে প্রকাশ্যে আজানের অনুমতি নিয়ে মুসলিম কমিউনিটির মধ্যে উৎসবের জোয়ার বইছে।

তারা বলছেন- ইসলাম ধর্মের অন্যতম ফরজ হলো নামাজ। সেই নামাজের আহ্বানে যে সুমধুর আজান দেয়া হয় তা এখন প্রকাশ্যে দেয়া যাবে। যা খুশির খবর। বায়তুল আমান ইসলামিক সেন্টারের প্রেসিডেন্ট ভারতীয় মুসলিম সেলিম রেংগেজ বলেন, অনেকদিন থেকেই তারা প্রকাশ্যে আজান দেয়ার অনুমতি নেয়ার চেষ্টা করছেন। অবশেষে আজ সফল হলেন। এই অনুমতি এখানে মুসলিম কমিউনিটির প্রতি অন্য ধর্মের অনুসারীদের জানার সুযোগ হবে। তারা আজানের কারণে যাতে অন্য ধর্মের লোকদের অসুবিধা না হয় সেই বিষয়ে নজর রাখতে সকল মসজিদ কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানান।

বিশিষ্ট কমিউনিটি ব্যক্তিত্ব আতিকুর রহমান জানান, এই অনুমতি ইসলামকে অন্য ধর্মের লোকদের জানারও সুযোগ করে দিবে। তিনি আজান দেয়ার জন্য সুমধুর কণ্ঠের অধিকারীদের অগ্রাধিকার দেয়ার জন্য মসজিদ কমিটির দায়িত্বশীলদের প্রতি আহ্বান জানান।

নিউইয়র্কের ব্রঙ্কসের বায়তুল আমান ইসলামিক সেন্টারের ইমাম ও খতিব মোহাম্মদ আজির উদ্দিন বলেন, এটা খুবই খুশির সংবাদ। আমেরিকার বুকে আল্লাহু আকবার প্রকাশ্যে বলা স্বপ্ন ছিলো। আজ তা পূরণ হলো। তিনি প্রকাশ্যে আজানের অনুমতি দেয়ার জন্য নিউইয়র্কের মেয়রসহ সকলের প্রতি ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানান।