ভারতে ২ বাংলাদেশিকে বিবস্ত্র করে নির্যাতন

আন্তর্জাতিক প্রচ্ছদ

ভারতে দুই বাংলাদেশিকে বিবস্ত্র করে পিটিয়েছে দেশটির পুলিশ। এরপর তাদের সীমান্তরক্ষী বাহিনী বিএসএফের হাতে তুলে দেওয়া হয়। তারা আরও এক দফা নির্যাতন চালিয়ে ফেলে যায় সীমান্তে।

এর আগে প্রতিবেশী দেশটির একটি রেলস্টেশনে তাদের গণপিটুনি দেয় ভারতীয়রা। এভাবে তিন দফায় অমানবিক নির্যাতনের শিকার হয়েছেন তারা। গুরুতর আহত যুবকরা হলেন কুড়িগ্রামের ভূরুঙ্গামারী উপজেলার জাহাঙ্গীর আলম ও খুলনার রূপসা থানার নতুন বাজার এলাকার হৃদয় শেখ।

 

জানা গেছে, ২১ জুলাই ব্যক্তিগত কাজের জন্য খাগড়াছড়ির রামগড় সীমান্ত দিয়ে ভারতে প্রবেশ করেন ভূরুঙ্গামারীর জাহাঙ্গীর ও রূপসার হৃদয়। সেখান থেকে ট্রেনে আগরতলা যাওয়ার পথে টিকিট না থাকায় তাদের নামিয়ে দেওয়া হয় কাঞ্চন কর্নার নামে একটি রেলস্টেশনে। তাদের জাতীয়তা জেনে স্টেশনেই গণপিটুনি দেওয়া হয়। এরপর তাদের স্থানীয় থানায় হস্তান্তর করা হয়। সেখানে দুই রাত রেখে বিবস্ত্র করে বেদম পেটায় পুলিশ।

২৩ জুলাই তাদের বিএসএফের কাছে হস্তান্তর করা হয়। ক্যাম্পে আটকে রেখে তাদের ওপর তৃতীয় দফায় নির্যাতন চালায় বিএসএফ। গুরুতর আহত অবস্থায় সোমবার ভোরে জাহাঙ্গীর ও হৃদয়কে মৌলভীবাজারের জুড়ীর লাঠিটিলা সীমান্তের ১৮০০ থেকে ১৮০১ নম্বর পিলারের দাগ নালাপুঞ্জি গেট দিয়ে বাংলাদেশ সীমান্তে রেখে যাওয়া হয়।

স্থানীয়রা তাদের দেখে বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) ও পুলিশকে খবর দেন। তারা আহত দুই যুবককে উদ্ধার করে জুড়ী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেয়। সেখানে প্রাথমিক চিকিৎসা শেষে তাদের সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।

তাদের মধ্যে একজনের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে হাসপাতালে দেখভালের দায়িত্বে থাকা লাঠিটিলা বিজিবি ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডার মোহাম্মদ গাউস জানান। তবে ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের অনুমতি ছাড়া বক্তব্য দিতে অস্বীকৃতি জানিয়েছেন তিনি।

জুড়ী থানার ওসি মোশাররফ হোসেন বলেন, গুরুতর আহত জাহাঙ্গীর ও হৃদয়কে হাসপাতালে চিকিৎসা দেওয়া হচ্ছে। তাদের অবস্থা অনেক খারাপ হওয়ায় এখনই এ বিষয়ে বিস্তারিত জানা সম্ভব হচ্ছে না। অবস্থার উন্নতি হলে বিজিবি তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করবে। তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী পরবর্তী